ঘটনায় মূল অ’ভিযুক্ত শ্বশুর। ঘটনায় স্থা’নীয় থানায় লিখিত অ’ভিযোগ দা’য়ের করা হয়েছে। যদিও এই ঘটনায় এখনো পর্যন্ত কাউকে গ্রে’প্তার করা যায়নি।




ভারতের রা’জস্থানের আলওয়ার জে’লার চোপানাকি নামক অ’ঞ্চলে তিন তা’লাক দেওয়ার পর এক নারী গণধ’র্ষণের শি’কার হয়েছেন। মাথায় ব’ন্দুক ধরে শ্ব’শুরবাড়ির লোকজনরাই ধ’র্ষণ করে বলে অ’ভিযোগ।




ভারতীয় সং’বাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, ২০১৫ সালে বিয়ে হয় ওই না’রীর। এরপর একটি ক’ন্যা স’ন্তানেরও জন্ম দেন। এরপর থেকেই নানাভাবে ওই নারীর ওপর অ’ত্যাচার শুরু হয়। কন্যা স’ন্তান জ’ন্ম দেওয়ার কারণে মহিলার ওপর অ’ত্যাচারের পরিমাণ আরো বেড়ে যায়।




কি’ন্তু অ’ত্যাচারের পরিমাণ বাড়তে থাকলে একদিন এই ঘটনার তীব্র প্র’তিবাদ করেন ওই ত’রুণী। এরপর গত নভেম্বর থেকে ওই নারীকে একটি ঘরে ব’ন্দি করে রাখে শ্ব’শুরবাড়ির লোকেরা। আ’টকে রেখেই তার ওপর অ’ত্যাচার চলত বলে অ’ভিযোগ।




নভেম্বর মাসের এক দিন ওই নারীর স্বা’মী মাতাল হয়ে বাড়ি ফিরে তাকে তিন তা’লাক দেয়। এরপরই তার শ্ব’শুর ও অন্য এক আ’ত্মীয় ঘরে ঢোকে। পরে শি’শুকন্যাটিকে লাথি মে’রে ঘরের বাইরে বের করে দিয়ে




গান পয়েন্টে ত’রুণীকে গণধ’র্ষণ করে তারা। যদিও পরে কোনোভাবে লুকিয়ে পালিয়ে বাঁচেন ওই ত’রুণী। ওই ঘটনার চারদিন পরে পু’লিশে ফোন করেন ওই ত’রুণী। তার অ’ভিযোগের ভিত্তিতে দা’য়ের করা হয়েছে মা’মলা।




স্থানীয় পু’লিশের ঊ’র্ধ্বতন ক’র্মকর্তা বলেন, এই ঘটনার পরেই একটি অ’ভিযোগ দা’য়ের করা হয়েছে ত’রুণীর স্বা’মী ও শ্ব’শুরের বি’রুদ্ধে। ত’রুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অ’ভিযুক্তদের খোঁজে তল্লা’শি শুরু করেছে পু’লিশ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here