স’ম্প্রতি জা’র্মানির মু’ন্টার বি’শ্ববিদ্যালয়ের স্না’য়ুবিভাগের গ’বেষণা প্রতিবেদন ‘সেফালাজিয়া, দ্য জার্নাল অব দ্য ই’ন্টারন্যাশনাল হেডেক সোসাইটি’তে বলা হয়েছে— সুস্থ শা’রীরিক স’ম্পর্কই হতে পারে মাইগ্রেনের স’মস্যার সমাধান।




মা’ইগ্রেনের স’মস্যায় জর্জরিত মানুষই কেবল জানে এর য’ন্ত্রণা। তবে এবার একদল বি’জ্ঞানী জানিয়েছেন, প্রচলিত ওষুধের বাইরেও এমন এক ম’হাওষুধ রয়েছে যা কিনা মা’ইগ্রেনের সমস্যায় দারুণ ভূ’মিকা রাখতে পারে।




দী’র্ঘ গ’বেষণার পর বি’জ্ঞানীদের প’রীক্ষালব্ধ ফল ও কিছু প’রিসংখ্যান প্রকাশ করেন গ’বেষকেরা। তাদের দাবি, নিয়মিত সুস্থ শা’রীরিক সম্পর্ক সরাসরি প্র’ভাব ফেলে ম’স্তিষ্কের হা’ইপোথ্যালামাসে। এর হাত ধরেই প্রায় ৭০ শতাংশ ক্ষেত্রে মা’ইগ্রেনের মতো ভ’য়ংকর ব্যথা কমে যেতে পারে।




নিউ ইয়র্কের ৩৫০ জন মা’ইগ্রেন আ’ক্রান্ত রো’গীদের ওপর প্রায় দুই বছর ধরে চালানো হয় গ’বেষণা। এক দলকে যৌ’ন সম্পর্কে লিপ্ত থাকার প’রামর্শ দেওয়া হয় তাদের স’ঙ্গী বা স’ঙ্গিনীর সঙ্গে। অপর দলকে সে সুযোগ থেকে ব’ঞ্চিত রাখা হয়।




সময়ের সঙ্গে স’ঙ্গে দেখা যায়, নিয়মিত যৌ’ন সং’সর্গ রয়েছে, এমন দলের প্রায় ৬৫ শতাংশই মাইগ্রেনের য’ন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেয়েছেন। মাইগ্রেনের ব্যথা শুরু হওয়ার দিনগুলোয় প্রতি পাঁচ জনে তিন জন মুক্তি পেয়েছেন মা’ইগ্রেনের যন্ত্র’ণা থেকে।




গ’বেষকদের ব্যাখ্যায়, সুস্থ ও স্বাভাবিক শা’রীরিক স’ম্পর্কের সময় শ’রীরের সেন্ট্রাল নার্ভাস সিস্টেমের দ্বারা এন্ডরফিন হরমোনের ক্ষরণ হয়। ফিল গুড হরমোনের অন্যতম এই হরমোন বেদনানাশ করতেও ওস্তাদ।




‘ফিল গুড’ ফ্যা’ক্টরকে দী’র্ঘক্ষণ ধরে রাখার পাশাপাশি এই হরমোন বে’দনানাশক ওষুধ মরফিনের চেয়েও শক্তিশালী। আমেরিকান হেলথ সেন্টারও ২০১৮ সালে যে কোনো বেদনানাশক হিসেবে যৌ’ন ‘সংসর্গের কার্যকরী দিক প্র’কাশ্যে আনে। এ বার মাইগ্রেন নিয়ে জা’র্মানির মুন্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের গ’বেষকদের এই গ’বেষণা প্রতিবেদন আগের সেই ফলাফলকেই স’মর্থন দিয়েছে।




মন ও শ’রীর উভয়েই প্রভাব বিস্তার করে ব্যথা কমাতে সা’হায্য করে। এর আগেও মা’ইগ্রেনের ব্যথা সারানোর নেপথ্যে যৌ’ন সম্পর্ক কতটা কার্য’কর, এ নিয়ে বি’শ্বজুড়ে নানাবিধ গ’বেষণা চলেছে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here